রানীশংকৈল উপজেলা আ’লীগের কমিটিতে জায়গা হলোনা দুঃসময়ে দলের ত্যাগী নেতাদের

0

ডেক্স রিপোটঃ ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল উপজেলাকে সব সময়েই আওয়ামী পন্থী উপজেলা হিসেবে ধরা হয়। এখানে হিসেব করলে দেখা যায় আওয়ামী সর্মথিত পরিবারের সংখ্যা অনেক বেশি। এবং বিগত সময়ে রানীশংকৈল উপজেলা শাখা আওয়ামী লীগ কমিটিতে সব সময়েই দুঃসময়ে দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হয়েছে।

এই উপজেলায় বেশ সুনামধন্য কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা আওয়ামী রাজনিতি করে প্রয়াত হয়েছেন। যা এখনও সেখানকার বয়বৃদ্ধদের কাছে শোনা যায়। তাদের মধ্যে অন্যতম মরহুম আলী আকবর এমপি, মোঃ মিজানুর রহমান,উপজেলা চেয়ারম্যান। মোঃ আবুল কাশেম, আফসার আলী, নুরুল ইসলাম সহ আরও বেশ কয়েকজন। তাদের উন্নয়ন যা এখনও শোনা যায়। জনগনের প্রতি তাদের ভালবাসার কথা এখনও জনমুখে ভেসে উঠে।

সেই আওয়ামী প্রন্থী উপজেলায় বারবারেই আওয়ামী সর্মথিত প্রার্থীদের পরজিত হতে হচ্ছে। জাতিয় নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নৌকার পরাজয়। উপজেলা নির্বাচনেও বিপুল ভোটের ব্যবধানে নৌকার পরাজয় হয়েছে। তবে এবার পৌর নির্বাচনে প্রার্থীর গ্রহণ যোগ্যতার কারনে নৌকা প্রতিক নিয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছে। তার কারন হিসেবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী সমর্থিত দুঃসময়ে দলের সাথে থাকা এক কর্মী বলেন, যে বার থেকেই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ সাহিদুল হক নির্বাচিত হন তখন থেকেই পুরাতন আ’লীগ সমর্থিত মানুষজন বিভক্ত হতে শুরু করে।

এবং তিনি এও বলেন যে এবারের কমিটিতে তার পরিবার থেকে ১৭জনকে বিভিন্ন পদে তিনি জায়গা করেদিয়েছেন। তার এই স্বেচ্ছাচারিতায় রানীশংকৈল উপজেলা আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করে দিয়েছে বলেও তিনি জানান। তিনি এও বলেন যে গত উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল এর প্রমাণ। মানুষ তাকে পছন্দ করে না নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করে তিনি বিপুল ভোটের ব্যবধানে হেরে গেছেন।

সদ্য অনুমোদন হওয়া রানীশংকৈল উপজেলা শাখা আ’লীগের কমিটিতে নিজ পরিবারের অযোগ্যদের কমিটিতে সদস্য সহ গুরত্বপূর্ণ পদে জায়গা ও এলাকা প্রীতীর অভিযোগও উঠেছে। এবং আ’লীগ সহযোগী সংগঠণের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকেও উপজেলা কমিটিতে জায়গা দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যপারে রানীশংকৈল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ সহিদুল হক মহাদয়ের সাথে কথা হলে তিনি প্রতিনিধিকে পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, এখানে আ’লীগ সর্মথিত অনেক মানুষ, কমিটি হচ্ছে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট। সবাইকে কি কমিটিতে রাখা যাবে? আর যারা বিগত সময়ে কমিটিতে ছিলেন তিনারা কি সব সময়েই জায়গা পাবে? নতুনদের জায়গা করে দিতে হবে। এবং এর মধ্যে অনেকে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে নৌকার বিপক্ষ্যে নির্বাচন করেছে তাই বেশ কয়েকজন বাদ পরেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে