আসছে মাহে রমজান, প্রস্তুতি নেয়ার শেষ পর্যায়।

0

মোঃ রবিউল হোসাইন সবুজঃ আরবি বর্ষপঞ্জি তথা হিজরি সালের শাবান চান্দ্রমাসের সমাপ্তির পরই প্রতিবছর রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের সওগাত নিয়ে আসে ইবাদতের মাস রমজানুল মোবারক। এ গুরুত্ববহ তাৎপর্যময় মাসের আগমন সারা বিশ্বের মুসলমানদের সুদীর্ঘ এক মাসের সিয়াম সাধনার জন্য বিশেষভাবে প্রস্তুত হওয়ার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। মুসলমানদের জীবনে সারা বছরের মধ্যে রমজান মাসে আল্লাহর অসীম দয়া, ক্ষমা ও পাপমুক্তির এক সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয় বলেই এ পুণ্যময় মাসের গুরুত্ব ও মর্যাদা এত বেশি। তাই বলা হয়, রমজান মাস হচ্ছে ইবাদত, পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, জিকির, শোকর তথা আল্লাহর নৈকট্য লাভের এক বিশেষ মৌসুম। মাহে রমজান এমনই এক বরকতময় মাস, যার আগমনে পুলকিত হয়ে স্বয়ং রাসুলুল্লাহ (সা.) সাহাবায়ে কিরামকে মোবারকবাদ দিয়ে সুসংবাদ প্রদান করেছেন, ‘তোমাদের সামনে রমজানের পবিত্র মাস এসেছে, যে মাসে আল্লাহ তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করেছেন।’ (মুসলিম)

মহান আল্লাহর অপার কৃপায় বরকতপূর্ণ পবিত্র শাবান মাস অতিবাহিত করে শেষদিকে পৌঁছে গেছি আমরা। ইতিমধ্যে মাসটির ২২দিন চলে গেছে। করোনাভাইরাসের আক্রমণে সারাবিশ্ব এক আতঙ্কের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। আমরা কেউ বলতে পারি না পবিত্র মাহে রমজানের রোজা রাখার তাওফিক আমাদের হবে কিনা।

তাই শাবান মাসের এ কয়েকটি দিনে রমজান পাওয়ার জন্য অনেক বেশি দোয়া করা উচিত। আল্লাহ তাআলা যেন তার অপার অনুগ্রহে এই মহামারি থেকে বিশ্ববাসীকে রক্ষা করেন।

মুমিন-মুত্তাকি বান্দা বরকতময় শাবান মাস থেকেই পবিত্র মাহে রমজানের চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। তারা শাবান মাসেই একটি রুটিন তৈরি করে নেয় যে, গত বছরের রমজান থেকে এবারের রমজানে কী কী নেক আমল বেশি করবেন।

শাবান মাস আসার আগেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুই হাত তুলে এ দোয়া পাঠ করতেন এবং সাহাবাদেরও পড়তে বলতেন-
اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِىْ رَجَبَ وَ شَعْبَانَ وَ بَلِّغْنَا رَمَضَانَ
উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা বারিক লানা ফি রজবাও ওয়া শাবানা ওয়া বাল্লিগনা ইলা শাহরির রমাদান।’ (মুসনাদে আহমাদ)
অর্থ : ‘হে আল্লাহ! তুমি আমাদের জন্য রজব ও শাবান মাসে বরকত দাও এবং আমাদেরকে রমজান পর্যন্ত পৌঁছিয়ে দাও।’

এ মাসকে বলা হয় মাহে রমজানের আগমনী বার্তার মাস। শাবান মাস মূলত পবিত্র মাহে রমজানের প্রস্তুতির মাস। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শাবান মাসে অন্যান্য মাসের তুলনায় বেশি বেশি নফল রোজা, কুরআন তেলাওয়াত ও নামাজ আদায়ের মাধ্যমে রমজানের প্রস্তুতি গ্রহণ করতেন।

উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা রাঃ বলেছেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কখনো নফল রোজা রাখতে শুরু করলে আমরা বলাবলি করতাম, তিনি বিরতি দেবেন না। আর রোজার বিরতি দিলে আমরা বলতাম যে, তিনি মনে হয় এখন আর নফল রোজা রাখবেন না। আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে রমজান ব্যতীত অন্য কোনো মাসে পূর্ণ এক মাস রোজা পালন করতে দেখিনি। কিন্তু শাবান মাসে তিনি বেশি নফল রোজা রেখেছেন।’ (মুসলিম)

হাদিসের অন্য এক বর্ণনায় এসেছে, ‘শাবান মাস ছাড়া অন্য কোনো মাসে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এত অধিক হারে নফল রোজা আদায় করতেন না।’ (বুখারি)

সমস্ত সৃষ্টি জগতের মধ্যে সেরা সৃষ্টি হওয়া সত্ত্বেও বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রমজানের চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণের আগে থেকেই রোজা রাখা শুরু করতেন। বেশি বেশি নফল নামাজ, ইবাদত-বন্দেগিও করতেন।

হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেছেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞাসা করা হলো, ‘আপনার কাছে মাহে রমজানের পর কোন মাসের রোজা উত্তম?’ তিনি বললেন, ‘রমজান মাসের সম্মান প্রদর্শনকল্পে শাবানের রোজা উত্তম।’ (তিরমিজি)

তাই আমাদের এখনই রমজানের পরিপূর্ণ কল্যাণ লাভে শাবান মাস থেকে কল্যাণের প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। শুধু রোজা রাখলেই কি রমজান মাসের সার্থকতা? অবশ্যই ‘না’। রমজানে রোজাও রাখতে হবে এবং অধিকহারে নফল ইবাদত, দান-খয়রাত এবং পুণ্যের কাজও করতে হবে।

পরিশেষে-আমরা যদি শাবান মাসের অবশিষ্ট দিনগুলোতে নফল ইবাদতে অতিবাহিত করি আর আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে এভাবে দোয়া করতে শুরু করি যে-
‘হে আল্লাহ! তুমি আমাকে সুস্থ রাখ, আমি যেন আগত রমজানে আগের তুলনায় অনেক বেশি ইবাদত-বন্দেগি, দান-খয়রাত, কুরআন তেলাওয়াতসহ সব নেক কাজ করতে পারি।’

একই সাথে আমাদের এই দোয়াও করা উচিত, আল্লাহ তাআলা যেন তার অপার মহিমায় রমজানের আগেই সারাবিশ্বকে প্রাণঘাতী মহামারি করোনার আক্রমণ থেকে রক্ষা করেন আর মুসলিম উম্মাহ যেন সুন্দরভাবে রমজানের দিনগুলো অতিবাহিত করার সৌভাগ্য পান।

আসুন একাগ্রচিত্তে প্রভুর দরবারে সকাতরে দোয়া করি-
‘হে দয়াময়! তুমি তোমার অপার রহমতে বিশ্বমানবতাকে ক্ষমা কর। রহমত, বরকত আর ক্ষমার দিনগুলোতে নিষ্ঠার সাথে তোমার ইবাদত করার সুযোগ করে দাও। মসজিদে গিয়ে ইবাদত করা থেকে আর বিরত রেখো না। আমরা আমাদের গোনাহের জন্য তোমার কাছে ক্ষমার ভিখারী, তুমি আমাদের ক্ষমা করে তোমার রহমতের চাদরে আবৃত করে নাও, আমিন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে