দেবীদ্বারে মেধাবী শিশু-কিশোরদের শিক্ষা শিক্ষা উপকরণ ও পাখীর বাসা বিতরণ

0

এ আর আহমেদ হোসাইন
(দেবীদ্বার- কুমিল্লা) প্রতিনিধি//

বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসে মানবতার ফেরিওয়ালাখ্যাত আমেরিকা প্রবাসী করোনা যোদ্ধা, প্রকৃতি প্রেমী ডা. ফেরদৌস খন্দকারের উদ্যোগে মেধাবী শিশু-কিশোরদের শিক্ষা বৃত্তি, শিক্ষা উপকরণ ও জীববৈচিত্র রক্ষায় পাখীদের জন্য তৈরী করা আবাসন বিতরণ করেছেন।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় করোনা বিধিমেনে দেবীদ্বার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আয়োজিত বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী কেজি স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে এক শিশু-কিশোর সমাবেশে, সুদূর আমেরিকা থেকে পাঠানো জ্যামেতির বক্সসহ শিক্ষার উপকরণ, চকলেট ও মেধাবী দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান ও বিতরণ এবং বিদ্যালয়ের আঙ্গীনায়, বাগানে, বৃক্ষের ডালে মাটি ও বাশের তৈরী পাখীদের নিরাপদ আবাসন স্থাপনে ২ শত প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধানদের মধ্যে ওই পাখীর বাসা বিতরণ করা হয়।

দেবীদ্বার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক রাহেলা আক্তার মজুমদার’র সভাপতিত্বে এবং ডা. ফেরদৌস খন্দকারের প্রতিনিধি কাউছার হায়দার’র সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন দেবীদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আরিফুর র হমান, সাংবাদিক এবিএম আতিকুর রহমান বাশার, কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগ’র উপদেষ্টা ও পৌর আ’লীগ সভাপতি হাজী আবুল কাসেম চেয়ারম্যান। উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সালমা ইসলাম, উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমান, তপন পোদ্দার, বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক গাজিউল হক চৌধূরী, আইটি বিশেষজ্ঞ মো. নাহিদ হাসান, আয়োজক মো. সাইফুল ইসলাম বাবু, মো. আনোয়ার সাদাত, মো. ফয়েজ উদ্দিন মোল্লা, মোহাম্মদ উল্লাহ ভূঁইয়া, গাজী আসিফ, রোমন খান, মহিউদ্দিন বাহারুল প্রমূখ।

আলোচকরা মানবতার ফেরিওয়ালাখ্যাত আমেরিকা প্রবাসী করোনা যোদ্ধা, প্রকৃতি প্রেমী ডা. ফেরদৌস খন্দকারকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, করোনাকালে তিনি সূদূর আমেরিকা থেকে ভিডিও ও অডিও কলে করোনায় আক্রান্তদের বুদ্ধি- চিকিৎসা পরামর্শ দিয়েছেন। নানাভাবে ব্যবস্থাপত্র, ঔষধ, খাদ্য সামগ্রী, ফলফলাদী সরবরাহ সহ যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। তার পিতা-মাতার নামে তৈরী ফাউন্ডেশন’র মাধ্যমে অসহায় দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতাল, সাংবাদিক, পুলিশ, ডাক্তার, নার্স, প্রশাসনের লোকজন সহ করোনা যোদ্ধাদের মাঝে পিপি, মাক্স, হ্যান্ড সেনিটাইজার, গ্লাপস, অক্সিজেন মেসিন সহ বিপুল পরিনমান নানা উপকরণ বিতরণ করেছেন। এখনো তা অব্যাহত রেখেছেন। শুধু তাই নয়, বিগত দুই যুগেরও অধিক সময় ধরে তার মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত ‘বাকসার ‘ফয়জুন্নেছা ফাউন্ডেশন’র উদ্যোগে অসহায় দরিদ্র, মেধাবী, প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা বৃত্তি, বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান ও ঔষধ বিতরণ, দায়গ্রস্থ পিতার কণ্যাদান, দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ পার্বনে ঈদ সামগ্রী বিতরনসহ নানা সামাজিককর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছেন। তিনি নতুন করে পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষায়, বিশেষ করে আধুনিক সমাজ ব্যবস্থায় বাড়ির আঙ্গীনায় থাকা ঝোপ-ঝার, জঙ্গল ও বৃক্ষ তরুলতা কেটে ফেলায় পাখীরা আবাসন সংকটে পড়ে যায়। আবাসন সংকট নিরসনে তার ভূমিকাটাও খুবই প্রশংসনীয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে