সুনামগঞ্জ জেলা মইনীয়া যুব ফোরামের কার্যালয়ের উদ্বোধন

0

আমির হেসেন, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃঃ সুনামগঞ্জ পৌরসভার হাছন নগর্ েগতকাল বুধবার সন্ধ্যায় সুনামগঞ্জ জেলা মইনীয়া যুব ফোরামের কার্যালয়ের উদ্বোধন করা হয়েছে। মইনীয়া যুব ফোরাম সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী ওয়াল হোসাইনী মাইজভান্ডারী।

এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, যুবকরা একটি দেশ বা জাতির প্রাণশক্তি। একটি সমৃদ্ধ উন্নত দেশ গড়তে তাদেরকে সুনাগরিকরূপে গড়ে তুলতে হবে। আমাদের প্রিয় নবিজী যুবকদের নিয়ে “হিলফুল ফুজুল” নামক শান্তিসংঘ গঠন করেছিলেন। একবিংশ শতাব্দীতে যুবকরা যখন মাদক, সন্ত্রাসসহ বিভিন্ন অপরাধ ও অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ছে যথাযথ গাইডলাইনের অভাবে, তখন তাদেরকে বিপথগামীতা থেকে দূরে রেখে দেশ ও মানবতার সেবায় উদ্ধুদ্ধ করার মাধ্যমে মহান আল্লাহ্ ও রাসুলেপাক এর সন্তুষ্টির পথে পরিচালিত করার লক্ষ্যে ২০১৩ সালে মইনীয়া যুব ফোরাম যাত্রা শুরু করে।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সংগঠনটি সমাজসেবামূলক কাজে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখে আসছে। ইতোমধ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বীকৃতিও অর্জন করেছে। মইনীয়া যুব ফোরাম মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, যৌতুক, শিশু-নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে শহরে গ্রামে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি, সেমিনারের মাধ্যমে জনসচেতনতা গড়ে তুলছে। প্রতি বছরই পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করছে। সাইক্লোন, বন্যাসহ দেশের যে কোন দূর্যোগ-সংকটে সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসছে।

বিশেষত বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মইনীয়া যুব ফোরাম তার যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছে এবং দেশের জন্য নিবেদিত একটি সংগঠন হিসেবে নিজেরকে প্রমাণ করেছে। ২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে দেশের ১৩০টি উপজেলায় “আতঙ্কিত নয়, সচেতন হোন” স্লোগানে দেশজুড়ে জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান পরিচালনা, লক্ষাধিক পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ, ৫০,০০০ মানুষকে স্যানিটাইজার, মাস্ক সাবানসহ সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেছে মইনীয়া যুব ফোরাম। শুধু তাই নয়, শ্রমিকের অভাবে যখন কৃষকরা সোনালী ফসল ঘরে তুলতে পারছিল না, দেশ এক ভয়াবহ খাদ্য সংকটের শঙ্কায় ভুগছে, তখন মইনীয়া যুব ফোরামের প্রায় ৩০০০ কর্মী ৩০টি জেলায় কৃষকদের ধান কেঁটে, মাড়াই করে তাদের ঘরে ফসল পৌঁছে দিয়েছে। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বন্যা দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছে।

গত ১৭ই মার্চ জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে তিনি বলেন, শিশুরা বেহেশতের ফুল। পৃথিবীকে শিশুদের জন্য নিরাপদ আবাসভূমি হিসেবে গড়ে তোলা, শিশুদের অন্তর্নিহিত সৃজনশীল প্রতিভার বিকাশের জন্য ২০১০ সালে ‘মইনীয়া শিশু-কিশোর মেলা’ নামক শিশু-কিশোর সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন, হযরত শাহ্সূফি সাইয়্যিদ মইনুদ্দীন আহমদ আল হাসানী ওয়াল হোসাইনী মাইজভান্ডারী (কঃ)। ‘হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ট্রাস্ট’র সহযোগিতায়, প্রতিবছর জাতীয় জাদুঘর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে শিশু-কিশোর চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে, মইনীয়া শিশু-কিশোর মেলা।

শিশু-কিশোরদের জন্য এটি দেশের অন্যতম বৃহত্তম আয়োজন। সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ক্যালিগ্রাফি ফাউন্ডেশন, ২০১৯ সালে জাতীয় জাদুঘরে ১০ম বারের মত ‘জাতীয় ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতা’র আয়োজন করেছে। ‘মইনীয়া ইসলামি সাংস্কৃতিক ফোরাম’ সুস্থ ধারার সংস্কৃতি বিকাশে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ও অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী বলেন, বঙ্গবন্ধু যে শোষণমুক্ত, বৈষম্যহীন, সম্প্রীতিপূর্ণ ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা বাস্তবায়নের দায়িত্ব প্রতিটি নাগরিকের।

আমরা আমাদের অবস্থান থেকে হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী ট্রাস্ট, আঞ্জুমান-এ-রাহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়া ও মইনীয়া যুব ফোরামসহ বিভিন্ন সংগঠনের মাধ্যমে দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ‘মইনীয়া যুব ফোরাম, সুনামগঞ্জ জেলা শাখা’র সভাপতি মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, খলিফা ফজলুর রহমান, খলিফা এডভোকেট মোহাম্মদ আফতাবউদ্দীন, খলিফা মোহাম্মদ মেন্দু মিয়া, খলিফা মোহাম্মদ আলী পান্নাসহ আঞ্জুমান-এ-রাহমানিয়া মইনীয়া মাইজভান্ডারীয়া ও মইনীয়া যুব ফোরামের জেলা নেতৃববৃন্দ, সদস্যবর্গ, সাংবাদিক , রাজনৈতিক , সামাজিক ও ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে