ঠাকুরগাঁওয়ে এক ভিক্ষুকের টাকা ছিনতাই

0

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি বাড়ির আঙিনায় অশ্রুসিক্ত চোখে বসে আছেন মহেলা বেগম (৮৫)। হাত দুটি সামনে নিয়ে ওপরের দিকে তাকিয়ে বার বার একটি কথায় বলছেন তিনি। ‘আমার টাকা ফিরিয়ে দাও, নাহলে আমাকে তুলে নাও। কী করে আমি ওষুধ খাব? মঙ্গলবার (২ মার্চ) সকালে ঠাকুরগাঁও পৌর এলাকার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের মুন্সিপাড়া এলাকায় রিকশাচালক রফিকুল ইসলামের বাড়িতে গেলে এমন চিত্র চোখে পড়ে। নিজের জমানো টাকা হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন এই বৃদ্ধা।

মহেলা বেগম ঠাকুরগাঁও পৌর এলাকার ১০ নম্বর ওয়ার্ড মুন্সিপাড়া এলাকার মৃত মজির উদ্দিনের স্ত্রী।

পরিবারের স্বজনরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে বুকে ব্যথা, স্মরণশক্তি কমে যাওয়াসহ বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছেন বৃদ্ধা মহেলা বেগম। সোমবার বিকেলে তিনি ওষুধ কেনার জন্য টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। এ সময় হঠাৎ মাথা ঘুরে যাওয়ায় তিনি বাড়ির সামনের সড়কে বসে পড়েন। সেখানেই আঁচল থেকে টাকা খুলে গুনছিলেন। হঠাৎ দুই তরুণ তার হাত থেকে টাকাগুলো ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়। তিনি সেখানে কান্নায় ভেঙে পড়েন। এলাকাবাসী খবর দিলে তাকে বাসায় নিয়ে আসা হয়। এরপর থেকে তিনি শুধু কান্না করছেন।

মহেলা বেগমের পুত্রবধূ লতিফা বেগম ঢাকা পোস্টকে জানান, দীর্ঘদিন ধরেই শাশুড়ি বুকে ব্যথা, কোমড়ে ব্যথাসহ বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছেন। আমার স্বামী একজন রিকশাচালক। যেখানে সংসার চালানো কষ্টকর সেখানে শাশুড়ির চিকিৎসা করাব কীভাবে?

তিনি আরও বলেন, আমার শাশুড়ি এলাকাবাসীর কাছ থেকে সাহায্য নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসা করে আসছেন। গতকাল বিকেলে বাসা থেকে জমানো প্রায় ৯ হাজার টাকা নিয়ে গেছিলেন ওষুধ কিনতে। দীর্ঘদিন ধরে টাকাগুলো তিনি জমা করেছেন। গতকাল বিকেলে দুই তরুণ তার টাকাগুলো ছিনিয়ে নিয়ে যায়। তিনি কাল থেকে এখন পর্যন্ত কিছু খাননি। শুধু কান্না করছেন।

মহেলা বেগম ঢাকা পোস্টকে বলেন, ওষুধ কেনার জন্য বাসা থেকে টাকা নিয়ে যাচ্ছিলাম। মাথা চক্কর দিবার কারণে রাস্তার ধারে একটু বসেছি। সেখানে বসে শাড়ির আঁচল থেকে টাকা বের করে গুনতেছিলাম। এ সময় দুইজন ছেলে এসে আমাকে বলে, বুড়ি আমাদের দে টাকা। আমি একটু ধমক দিলে তারা আমার হাত থেকে টাকা ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়।

মহেলা বেগম আরও বলেন, আমার ছেলে রিকশা চালায়। আমার চিকিৎসার খরচ দিতে পারে না। ওষুধ কেনার জন্য মানুষের কাছ থেকে চেয়ে টাকা নেই। আমার টাকাগুলো ওরা নিয়ে চলে গেল। আমার টাকা আমাকে ফিরিয়ে দিন,আমি আপনাদের পায়ে পড়ি। আমি ওষুধ খাব সেই টাকা নিয়ে। টাকা না পেলে আমি মরে যাব।

ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভিরুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। যারা এই বৃদ্ধা নারীর টাকা নিয়ে গেছেন তাদের শনাক্ত করার জন্য পুলিশ কাজ করছে। সিসিটিভির ফুটেজ চেক করা হচ্ছে। এর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের খুঁজে বের করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে