তাহিরপুরে পারিবারিক সংঘর্ষে আহত ২

0

টাইফুন মিয়া, তাহিরপুর প্রতিনিধিঃ
সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার পুরান বারুঙ্কা গ্রামে পারিবারিক সংঘর্ষে ২জন গুরুতর আহত হয়েছে। আহত ২জন বর্তমানের সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

রবিবার (২১শে ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৫টায় উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নের পুরান বারুঙ্কা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে আহত ব্যক্তিরা হলেন, পুরান বারুঙ্কা গ্রামের সত্রিশ দাস এর ছেলে রংলাল রবি দাস(৩০) ও দ্বীপলাল দাস এর মেয়ে শিউলী রানী দাস(১৭)।

জানা যায়, সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত রংলাল রবি দাস ও শিউলী রানী দাস প্রতিপক্ষ মানিক দাস এর ছেলে রঞ্জিত, সঞ্জিত ও স্ত্রী আরতি রানী নিকট আত্মীয় ও প্রতিবেশী। তাদের বাড়ির উঠোনে সকলের যৌথভাবে গড়া তোলা বড়ই গাছে রংলাল রবি দাসের চাচাতো ভাই (৬) বড়ই কুড়াতে গেলে প্রতিপক্ষ রঞ্জিত তাকে তাড়িয়ে দেয় ও গালিগালাজ করে। পরে রংলাল রবি ও শিউলী রানী প্রতিবাদ করলে প্রতিপক্ষ দল তেড়ে আসে। একপর্যায়ে রঞ্জিতের দা’র কুপে হাতে আঘাত পেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে পরক্ষণেই আরতি রানী বাঁশ দিয়ে তাকে তার মেরুদণ্ডে আঘাত করে। প্রতিবাদে রংলাল রবি এগিয়ে আসলে তাকেও বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেয় রঞ্জিত, সঞ্চিত ও আরতি রানী।

পরে আহতদের তাহিরপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

আহত রংলাল রবি’র ভাতিজা রতন দাস বলেন, তারা প্রতিহিংসাপরায়ন হয়ে আমার চাচা ও বোনের উপর আক্রমণ করেছে।

রঞ্জিত দাস বলেন, আমাদের বাড়ির বড়ই গাছটি যৌথভাবে গড়ে উঠলেও গাছের পরিচর্যা ও গাছের নিচের ময়লা কেউ পরিষ্কার করে না। আমরা গাছটির পরিচর্যা করি বিধায় তাদেরকে বড়ই নিতে বাঁধা প্রদান করলে কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে তারা সংঘর্ষ বাঁধে।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর থানায় এখনও কোনো লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়নি বলে জানান তাহিরপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে