তিব্র শৈত্য প্রবাহের কবলে কুড়িগ্রাম

0

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: রবিবার সকাল ৬টায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৫ দশমিক ৫ডিগ্রী সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে কুড়িগ্রামে। কুড়িগ্রামের রাজারহাট আবহাওয়া অফিস বলছে কুড়িগ্রামের উপর দিয়ে তিব্র শৈত্য প্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। একসপ্তাহ জুড়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের কোটায় থাকার পর আজ হঠাৎ ৫দশমিক ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসে নেমে আশায় চরম দূর্ভোগে পড়েছে কুড়িগ্রামের মানুষ।

শনিবার ৬টায় কুড়িগ্রামের তাপমাত্রা ছিলো ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রী সেলসেয়িাস। আজ রবিবার ৪ দশমিক ৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা কমে গিয়ে মৃদু থেকে তিব্র শৈত্য প্রবাহের রুপ নিয়েছে।

এদিকে টানা ৬দিন মৃদু শৈত্য প্রবাহ প্রবাহিত হওয়ার পর হঠাৎ তিব্র শৈত্য প্রবাহ শুরু হওয়ায় কুড়িগ্রামের জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না তারা। জনশূণ্য হয়ে পড়েছে রাস্তা ঘাট। সন্ধ্যার পর বন্ধ হয়ে যাচ্ছে দোকান পাঠ।শীতের কারণে দূর্ভোগে পড়েছে দিনমুজুর, ছিন্নমূল ও খেটে খাওয়া মানুষ। কুড়িগ্রামের ধরলা পাড়ের কৃষক চান মিয়া(৫০) জানান, ঠান্ডার মাত্রা বেড়েযা ওয়ায় আমরা বিপাকে পড়েছি। বোরো চাষের ভরা মৌসুম চললেও কনকনে ঠান্ডায় ঠিক মতো মাঠে কাজ করতে না পারায় ব্যাহত হচ্ছে বোরো আবাদ। ফলে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ছি আমরা।

প্রচন্ড ঠান্ডা এবং ঘনকুয়াশায় জুবুথুবু হয়ে পড়েছে কুড়িগ্রামের জনজীবন। দিনের অধিকাংশ সময় কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকে চারদিক। প্রচন্ড ঠান্ডার সাথে পাল্লা দিয়ে সারারাত বৃষ্টির মতো ঝরতে থাকে শিশির। ঘন কুয়াশার কারণে দিনের বেলাতেও হেড লাইট জ্বালিয়ে যানবাহনকে চলাচল করতে হয় এ জেলায়। রাতভর শীতের সাথে যুদ্ধ করে সকালে কাজে যোগদেয়া শ্রমজীবী মানুষের দূর্ভোগ চরমে উঠেছে। এছাড়া দূর্ভোগে পড়েছে দিনমুজুর, ছিন্নমূল ও চরাঞ্চলের মানুষ। শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু ও বৃদ্ধরা।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট আবহাওয়া ও কৃষি পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান, হঠাত করেই কুড়িগ্রামে তিব্র শৈত্য প্রবাহ শুরু হয়েছে। আজ সকাল ৬টায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৫ দশমিক ৫ডিগ্রী সেলসিয়াস কুড়িগ্রামে রেকর্ড করা হয়। যা এ মৌসুমেরও সর্বনি¤œ তাপমাত্রা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে